ডায়াবেটিকস হলে করণীয় কি?

বর্তমানে আমাদের কমন একটি রোগ হচ্ছে ডায়াবেটিকস যা আমাদের জন্য অনেকটা কঠিন একটা রোগ। বর্তমানে ডায়াবেটিস রয়েছে প্রায় ৪৫% মানুষের যাদের মধ্যে পুরুষ মহিলা উভয়ই রয়েছে। শরীর একটু ভারী হলে তার মধ্যে ডায়াবেটিকস দেখা দেয়। আজকে আমরা জানবো ডায়াবেটিকস হলে করণীয় কি? সে বিষয়ে সম্পর্কে।

বর্তমানে ডাইবেটিক্স নেই এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া অনেক কষ্টকর। তবে অনেকের অজান্তেই নিজে ডায়াবেটিকস পোষণ করছে কিন্তু নিজেই জানেনা তার ডায়াবেটিস রয়েছে। তবে সবার উচিত এটি চেক করা।

আপনি একভাবে যদি ১৫ দিন অতিরিক্ত মাত্রায় মিষ্টি অথবা চিনি গ্রহণ করেন সেক্ষেত্রে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার শরীরের ধাপ পরিবর্তন কেমন। আমরা জানি ডায়াবেটিকস মানুষকে অনেক নরম করে ফেলে এবং খাবারের দিক থেকে তাকে একদম আলাদা করে ফেলে যা নিজের জীবনকে বাঁচিয়ে রাখা কষ্টকর।

ডায়াবেটিকস হলে করণীয় কি?

যদি আপনি জেনে থাকেন যে আপনি ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত হলে তাৎক্ষণিকভাবে আপনার প্রত্যেকদিনের খাবারের মধ্যে পরিবর্তন আনুন।

প্রত্যেকদিন দিয়ে সকল খাবার খাচ্ছেন সে খাবারগুলোর মধ্যে প্রোটিন, আমিষ, শর্করা এবং ভিটামিন আছে কিনা তা চেক করুন। এগুলো না থাকলে যে খাবারে আমিষ এবং ভিটামিন রয়েছে সে খাবার গুলো গ্রহন করুন।

মিষ্টি যুক্ত খাবার বর্জন করুন। অতিরিক্ত মিষ্টি খাওয়া একটা ডাইবেটিক্স রোগীর জন্য অনেক বেশি সমস্যা নিয়ে আসতে পারে। তাই মিষ্টি পরিহার করুন। চিনিযুক্ত খাবার পরিহার করুন।

নিয়মিত হাঁটার অভ্যাস করুন, সারাদিন বসে বসে কাজ করবেন না কিছু সময় কাজ করে আবার হাটা চলা করুন আবার কাজ করুন আবার হাটা চলা করুন এভাবে সময় কাটিয়ে দিন।

সবাই সবার ধর্ম থেকে ধর্মগ্রন্থ পালন করুন। ইসলাম ধর্ম হলে নামাজ আদায় করুন এতে আপনার শরীর ঠিক থাকবে এবং ঈমান মজবুত হবে সাথে আপনার ফরজ আদায় হবে।

বেশি করে পানি পান করুন। ঝাল যুক্ত খাবার খাওয়ার অভ্যাস করুন। অতিরিক্ত মিষ্টি খাবার থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখুন। কাত হয়ে ঘুমানোর চেষ্টা করুন।

►► আরো দেখো: আমার অভিশপ্ত জীবন
►► আরো দেখো: একজন খাঁটি মুসলমানের পরিচয়

কি জন্য ডায়াবেটিস হয়?

ডায়বেটিকস হওয়ার বেশ লক্ষণ এবং মাধ্যম রয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটা মাধ্যম চলমান রয়েছে যে বংশ ধারা এটা হতে পারে। (আপনার বংশের অন্য কারো ডায়াবেটিস থাকলে সেটা আপনার মধ্যে আসতে পারে)

অতিরিক্ত চিনি এবং মিষ্টি জাতীয় খাবার খেলে ডায়বেটিকস হতে পারে। অতিরিক্ত মিষ্টি খাওয়ার ফলে শরীরের শক্তি কমে যায় সাথে ডায়াবেটিস হয়ে যায়।

সারাদিন বসে কাজ করলে পেটের ভুড়ি বড় হয়ে যায় সেই সাথে ডায়বেটিকস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যথাসম্ভব হাঁটা-চলার চেষ্টা করতে হবে। নিয়মিত হাঁটার অভ্যাস তৈরি করতে হবে।

অতিরিক্ত ভজন করা থেকে বিরত থাকতে হবে। খাওয়ার মধ্যে সবসময় লিমিটেশন তৈরি করতে হবে। অতিরিক্ত খাবার খাওয়ার অভ্যাস থাকলে সে অভ্যাসকে পরিহার করতে হবে।

যেসব কারণে ডায়াবেটিস হয়ে থাকে সে কারণ গুলো এড়িয়ে চলতে হবে। মনে রাখবেন ডায়াবেটিকস একটা মারাত্মক রোগ এটি যেন আপনার মধ্যে কোনভাবেই না আসতে পারে সেদিকে পর্যাপ্ত লক্ষ্য রাখতে হবে।

জীবনযাপন যদি স্বাস্থ্যকর না হয়, সে ক্ষেত্রে আরও ৫০ শতাংশ। মানে শতভাগ। ঘরের কাজ, অফিসের কাজ, যা-ই থাকুক না কেন, ব্যায়ামের বিকল্প নেই। প্রতি সেকেন্ডে দুই পা হাঁটতে হবে। জোরে জোরে প্রতিদিন অন্তত আধা ঘণ্টা হাঁটতে হবে।

ডায়াবেটিস নিয়ে কিছু কথা!

আমরা পূর্বেই বলেছি যে এটি এমন একটি রোগ যা আপনার পরিবারের কারো যদি থাকে তাহলে সেটা আপনার হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে তাই নিজের শরীরকে ফিট রাখতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করুন তাহলে এটি থেকে আপনি বিরত থাকতে পারবেন।

খাবার-দাবারের মধ্যে পর্যাপ্ত লিমিট রাখুন তাহলে ডায়াবেটিস থেকে আপনি দূরে থাকতে পারবেন।

ডাইবেটিক্স এমন একটি রোগ যা আপনার খাবার দাবার অথবা আপনার শরীর সবকিছু লিমিট করে ফেলবে এবং প্রত্যেক দিন আপনার শরীরকে খুব বেশি লাজুক এবং অলস করে ফেলবে।

তাই যথাসম্ভব চেষ্টা করুন প্রত্যেকদিন হাঁটাহাঁটির অভ্যাস করুন ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন নিজের শরীর মিডিয়াম রাখার চেষ্টা করুন অতিরিক্ত মোটা হওয়ার লক্ষে কিছুই করবেন না।

আমাদের আর্টিকেলটি কেমন লেগেছে তা জানিয়ে একটি কমেন্ট করুন এবং আপনার কোন বিষয় যদি জানা থাকে সেটি জানিয়ে আমাদেরকে মেইল করুন [email protected]

অনুগ্রহ করে আমাদের ইউটিউব চ্যানেলটি সাবস্ক্রাইব করুন।  আমাদের ফেসবুক পেইজ এ লাইক দিতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.